পেতে চাও খাঁটি মানুষের খেতাব

প্রিয়জনের সঙ্গে শেয়ার করুন :--👍

 28 total views

ঈমানদার খোঁজে কোথায় পাবে?
বেঈমানী আছে মিশে সকলের রক্তে।
আমি মুসলিম, আমি মুসলিম ব’লে ফাটায় গলা
নিষেধ আছে, চিরন্তন সত্যটা আজ যাবেনা বলা।
মিথ্যে বলা মহাপাপ, সমালোচনা বাপরে বাপ
তারপরও মিশে আছে রক্তে, সত্যের বাণী যায় ভেস্তে।
গাঁয়ের ছোট্ট ছোট্ট চায়ের দোকানগুলোতে –
মিথ্যের মুশলধারা বৃষ্টি ঝরে,রাজনীতিতে বজ্রপাত
পেটের ভাত হয়না হজম, গালাগাল না দিলে তোলে জাতপাত।
সত্য আজ কারাগারে নিভৃতে কাঁদে, ফাঁসিতে ঝুলে
তা দ্যাখে সত্যের পূজারীরা সত্য ছেড়ে মিথ্যে ধরে।
গাঁয়ের চায়ের দোকান গুলো আজ রাজনীতির বিদ্যাপীঠ
সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলে রাজনৈতিক চর্চা।
জর্জ ডব্লিউ বুশ, লাদেন, জো বাইডেন, সাদ্দাম
সবাইকে নিয়ে তারা পড়ে, পৃথিবীর মানচিত্র এখানে বসে-ই পরিবর্তন করে।
কুনোব্যাঙ কখনো ছেড়ে যায়নি ঘরের কোনা
এই সমালোচক’রা ঠিক কুনোব্যাঙের মতোই –
ছোট্ট চায়ের দোকানটা তাদের পৃথিবী
জো বাইডেন, মুদি, ভ্লাদিমির পুতিনকে এখানে বসে ক্ষমতাচ্যুত করার স্বপ্ন দ্যাখে।
পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে চায়ের দোকানগুলো
শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা থেকে টেনেহিঁচড়ে নামিয়ে
খালেদাকে বসিয়ে দিচ্ছে ক্ষমতার সিংহাসনে
আবার খালেদা, ডা. ইউনুসকে চুবিয়ে মারছে পদ্মার জলে।
কাঁদা ছোড়াছুড়ি, জলে ডুবাডুবি পরিণত আদর্শে
এমন আদর্শ বুকে আঁকড়ে দাবী করছে মুসলিমত্ব।
মুসলিমের ঘরে নিয়ে জন্ম, হ’য়েছি মোরা মুসলিম
কাগজে লিখা বাণীতে গড়লে জীবন –
তামাশা করবে, রঙ্গ করবে ভুবন।
ক্যামন মুসলিম তুমি –
তোমার কটুক্তি থেকে রক্ষা পায়না হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, জৈন
লেলিয়ে দাও দূর্বলের পিছনে তব সৈন্য।
চুগলখোরীতে বেশ দক্ষ, পরনিন্দায় পরিপক্ব
যা নিষেধ করেছেন আল্লাহ – রাসূল
প্রফুল্লচিত্তে করছো তা, লবন ছিটাচ্ছো দ্যাখে অন্যের ঘা।
ঈমানদার খোঁজে কোথায় পাবে?
বেঈমানী মিশে আছে রক্তে, ভাই ভাইয়ের সাথে
পড়শী পড়শীর সাথে।
কয়েক বছরের জিন্দেগী
ক্যানো করছো অপশক্তির বন্দেগি?
সত্যের পথে চালাও জীবন, মরলে যেন কাঁদে ভুবন।
মৃত্যুর ভয়, শেষ বিচারের ভয় থাকতো যদি অন্তরে
মানুষ মারার রাজনীতি করতে না, নির্দোষীকে দোষী বানিয়ে কয়েদখানা ভরতে না।
মুখেমুখে বলো আল্লাহ মানি, রাসূল মানি
মানি তাদের কিতাব –
সুদ ছাড়ো না, ঘুষ ছাড়ো না, ছাড়ো না কুনীতি
পেতে চাও খাঁটি মানুষের খেতাব।

৩০/০৫/২০২২ সৌদি আরব

Publication author

মোঃ আকাইদ-উল-ইসলাম (মিটু সর্দার)। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলাধীন কসবা উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত বড়মুড়া গ্রামে ১৯৮৭ সালের ১০ই নভেম্বর, এক সম্ভান্ত্রশালী মুসলিম পরিবারে কবির জন্ম। কবির পিতার নাম নূরুল ইসলাম (মাষ্টার) আর পিতামহের নাম আলতাব আলী সর্দার
Comments: 0Publics: 95Registration: 02-04-2022
প্রিয়জনের সঙ্গে শেয়ার করুন :--👍
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

একে অপরের কবিতায় মন্তব্য করে সমালোচনা করুন। আপনার পরিচিতি লাভ করুন।